ঢাকা ০৪:৪৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আরএমপি ডিবি’র অভিযানে ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট ও ইয়াবা উদ্ধার; গ্রেফতার ৩

রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)

রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া ও দামকুড়া থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ১ হাজার ৩১০ পিস ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট ও ১৪০ পিস ইয়াবাসহ ৩ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এসময় নগদ  ২০ হাজার ৬০ টাকা জব্দ করা হয়।
গ্রেফতারকৃত আসামিরা হলেন, মো: রাশেদুল ইসলাম রাজু (২২), মো: রফিকুল ইসলাম (৪০) ও মো: স্বপন মন্ডল (৩৯)। রাশেদুল ইসলাম রাজশাহী মহানগরীর কাটাখালী থানার চরশ্যামপুর চরপাড়ার মো: মাজদার আলীর ছেলে, রফিকুল ইসলাম রাজশাহী জেলার মোহনপুর থানার বসন্তকেদার বিদিরপুরের মৃত রমজানের ছেলে ও স্বপন মন্ডল একই এলাকার মৃত আবুল কালাম আজাদের ছেলে।
ঘটনা সূত্রে জানা যায়, গতকাল ২২ নভেম্বর ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ সন্ধ্যা ৬:৩০ টায় রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার কে এম আরিফুল হক পিপিএম-এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ড. মো: রুহুল আমিন সরকারের দিকনির্দেশনায় সহকারী পুলিশ কমিশনার মোসা: আরজিনা খাতুনের নেতৃত্বে এসআই মো: রবিউল ইসলাম ও তাঁর টিম মহানগর এলাকায় মাদকদ্রব্য উদ্ধার অভিযান ডিউটি করছিলো। এসময় তাঁরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারেন বোয়ালিয়া থানার রামচন্দ্রপুর বাশার রোড এলাকায়  দুই জন ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট বিক্রয়ের জন্য অবস্থান করছে।
উক্ত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে ডিবি পুলিশের ঐ টিম রাতেই বোয়ালিয়া থানার রামচন্দ্রপুর বাশার রোড এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে আসামি মো: রাশেদুল ইসলাম রাজুকে গ্রেফতার করে। অপর আসামি আবু হানিফ একটি শপিং ব্যাগ ফেলে পালিয়ে যায়। এসময় গ্রেফতারকৃত আসামি ও পলাতক আসামির ফেলে যাওয়া ব্যাগ তল্লাশি করে ৫০০ পিস ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট উদ্ধার হয়।
জিজ্ঞসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামি জানায়, পলাতক আসামি হানিফ একটি বিল্ডিংয়ের কেয়ারটেকার এবং সেই বিল্ডিংয়ের নীচ তলার একটি  রুমে বসবাস করে। সেখান থেকে তারা দীর্ঘদিন যাবত ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেটের ব্যবসা করে আসছে। গ্রেফতারকৃত আসামির দেওয়া তথ্যমতে পলাতক আসামির বাসায় অভিযান পরিচালনা করে আরও ৮১০ পিস ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট উদ্ধার হয়। এসময় নগদ ২০ হাজার ৬০০ টাকা জব্দ করা হয়।
অপর একটি অভিযানে এসআই কাজী জাকারিয়া ও তাঁর টিম সন্ধ্যা সোয়া ৭ টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে দামকুড়া থানার নতুন কসবা এলাকা হতে আসামি মো: রফিকুল ইসলাম ও মো: স্বপন মন্ডলকে ১৪০ পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার করেন।
পলাতক আসামিকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে আরএমপি’র বোয়ালিয়া ও দামকুড়া থানায় মাদকদ্রব্য আইনে মামলা রুজু করে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

পায়রা বন্দর পরিদর্শন এবং বন্দর কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তাদের সাথে রাসিক মেয়রের মতবিনিময়

আরএমপি ডিবি’র অভিযানে ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট ও ইয়াবা উদ্ধার; গ্রেফতার ৩

আপডেট সময় ০৭:১২:০২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ২০২৩
রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া ও দামকুড়া থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ১ হাজার ৩১০ পিস ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট ও ১৪০ পিস ইয়াবাসহ ৩ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এসময় নগদ  ২০ হাজার ৬০ টাকা জব্দ করা হয়।
গ্রেফতারকৃত আসামিরা হলেন, মো: রাশেদুল ইসলাম রাজু (২২), মো: রফিকুল ইসলাম (৪০) ও মো: স্বপন মন্ডল (৩৯)। রাশেদুল ইসলাম রাজশাহী মহানগরীর কাটাখালী থানার চরশ্যামপুর চরপাড়ার মো: মাজদার আলীর ছেলে, রফিকুল ইসলাম রাজশাহী জেলার মোহনপুর থানার বসন্তকেদার বিদিরপুরের মৃত রমজানের ছেলে ও স্বপন মন্ডল একই এলাকার মৃত আবুল কালাম আজাদের ছেলে।
ঘটনা সূত্রে জানা যায়, গতকাল ২২ নভেম্বর ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ সন্ধ্যা ৬:৩০ টায় রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার কে এম আরিফুল হক পিপিএম-এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ড. মো: রুহুল আমিন সরকারের দিকনির্দেশনায় সহকারী পুলিশ কমিশনার মোসা: আরজিনা খাতুনের নেতৃত্বে এসআই মো: রবিউল ইসলাম ও তাঁর টিম মহানগর এলাকায় মাদকদ্রব্য উদ্ধার অভিযান ডিউটি করছিলো। এসময় তাঁরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারেন বোয়ালিয়া থানার রামচন্দ্রপুর বাশার রোড এলাকায়  দুই জন ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট বিক্রয়ের জন্য অবস্থান করছে।
উক্ত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে ডিবি পুলিশের ঐ টিম রাতেই বোয়ালিয়া থানার রামচন্দ্রপুর বাশার রোড এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে আসামি মো: রাশেদুল ইসলাম রাজুকে গ্রেফতার করে। অপর আসামি আবু হানিফ একটি শপিং ব্যাগ ফেলে পালিয়ে যায়। এসময় গ্রেফতারকৃত আসামি ও পলাতক আসামির ফেলে যাওয়া ব্যাগ তল্লাশি করে ৫০০ পিস ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট উদ্ধার হয়।
জিজ্ঞসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামি জানায়, পলাতক আসামি হানিফ একটি বিল্ডিংয়ের কেয়ারটেকার এবং সেই বিল্ডিংয়ের নীচ তলার একটি  রুমে বসবাস করে। সেখান থেকে তারা দীর্ঘদিন যাবত ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেটের ব্যবসা করে আসছে। গ্রেফতারকৃত আসামির দেওয়া তথ্যমতে পলাতক আসামির বাসায় অভিযান পরিচালনা করে আরও ৮১০ পিস ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট উদ্ধার হয়। এসময় নগদ ২০ হাজার ৬০০ টাকা জব্দ করা হয়।
অপর একটি অভিযানে এসআই কাজী জাকারিয়া ও তাঁর টিম সন্ধ্যা সোয়া ৭ টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে দামকুড়া থানার নতুন কসবা এলাকা হতে আসামি মো: রফিকুল ইসলাম ও মো: স্বপন মন্ডলকে ১৪০ পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার করেন।
পলাতক আসামিকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে আরএমপি’র বোয়ালিয়া ও দামকুড়া থানায় মাদকদ্রব্য আইনে মামলা রুজু করে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।