ঢাকা ০৪:২৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ মে ২০২৪, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
রাতের শেষ প্রহরে আমাদের খাবার খাওয়ার তেমন অভ্যাস নেই বললেই চলে

সেহরিতে যে সব খাবার বেশি খাবেন।

লাইফস্টাইল ডেস্ক

সেহরিতে ঝটপট যা খাবেন
রোজা রাখার একটি গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হলো সঠিক সময়ে সেহরি খাওয়া। সাধারণত আমরা শেষ রাতে সেহরি খেয়ে থাকি। এ সময় রান্না করে খাওয়াটা যেমন ভীষণ ঝক্কি ঝামেলার ব্যাপার, তেমনি ভুল খাবার খাওয়ার ফলেও পড়তে পারেন নানান অসুবিধায়।

রাতের শেষ প্রহরে আমাদের খাবার খাওয়ার তেমন অভ্যাস নেই বললেই চলে। তাই এ সময়টায় নিজেকে মানিয়ে নিতে প্রথম কয়েক রোজায় আমাদের থাকতে হবে বাড়তি কিছু সতর্কতায়। সেই সঙ্গে স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর খাবারে প্রাধান্য দিতে হবে, যা সহজেই কম সময়ে প্রস্তুত করা যায়।

রোজার এই সময়টা যেহেতু গরমে পড়েছে, তাই খাবারের পাশাপাশি সেহরিতে অবশ্যই প্রাধান্য দিতে হবে বিশেষ পানীয়কে।

সেহরির পর দীর্ঘসময় খাবার ও পানীয়র বিরতি থাকায় শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় পানীয়র ঘাটতি মিটিয়ে নিতে সেহরিতে অবশ্যই প্রাধান্য দিন ডাবের পানিকে।

সেহরিতে ডাবের পানি পান করতে একটি গ্লাসে ডাবের পানি নিয়ে তাতে পরিমাণমতো মধু, লেবুর রস, বিটলবণ আর পুদিনা পাতা ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই পানীয় পান করলে গরমেও আপনার শরীর দীর্ঘ সময় ঠান্ডা থাকবে।

ডাবের পানির পরিবর্তে প্রাধান্য দিতে পারেন কমলার রসকেও। তৈরি করতে পারেন সৌদি আরব ও তুরস্কের অতি জনপ্রিয় পানীয় লাবান। এটি তৈরি করতে পারেন লবণ ও চিনি দিয়েই। ২ কাপ টক দইয়ে পরিমাণমতো লবণ আর ১ চা-চামচ চিনি দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে এটিকেও রাখতে পারেন সেহরিতে।

সারা দিন শরীরে পানির ভারসাম্য বজায় রাখতে এবং শরীর থেকে দূষিত পদার্থ বের করে দিতে সেহরিতে রাখতে পারেন রঙিন ফলমূলের সালাদ। ওটস প্রোটিন ও ফাইবারে ভরপুর। এটি খেলে অনেকক্ষণ পেট ভর্তি থাকে। এ ছাড়া পনির আর সন্দেশকেও সেহরিতে রাখতে পারেন নিশ্চিন্তে।

রাজশাহীতে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ শীর্ষক আলোচনা সভা

রাতের শেষ প্রহরে আমাদের খাবার খাওয়ার তেমন অভ্যাস নেই বললেই চলে

সেহরিতে যে সব খাবার বেশি খাবেন।

আপডেট সময় ০২:৩৪:৪৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১০ এপ্রিল ২০২২

সেহরিতে ঝটপট যা খাবেন
রোজা রাখার একটি গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হলো সঠিক সময়ে সেহরি খাওয়া। সাধারণত আমরা শেষ রাতে সেহরি খেয়ে থাকি। এ সময় রান্না করে খাওয়াটা যেমন ভীষণ ঝক্কি ঝামেলার ব্যাপার, তেমনি ভুল খাবার খাওয়ার ফলেও পড়তে পারেন নানান অসুবিধায়।

রাতের শেষ প্রহরে আমাদের খাবার খাওয়ার তেমন অভ্যাস নেই বললেই চলে। তাই এ সময়টায় নিজেকে মানিয়ে নিতে প্রথম কয়েক রোজায় আমাদের থাকতে হবে বাড়তি কিছু সতর্কতায়। সেই সঙ্গে স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর খাবারে প্রাধান্য দিতে হবে, যা সহজেই কম সময়ে প্রস্তুত করা যায়।

রোজার এই সময়টা যেহেতু গরমে পড়েছে, তাই খাবারের পাশাপাশি সেহরিতে অবশ্যই প্রাধান্য দিতে হবে বিশেষ পানীয়কে।

সেহরির পর দীর্ঘসময় খাবার ও পানীয়র বিরতি থাকায় শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় পানীয়র ঘাটতি মিটিয়ে নিতে সেহরিতে অবশ্যই প্রাধান্য দিন ডাবের পানিকে।

সেহরিতে ডাবের পানি পান করতে একটি গ্লাসে ডাবের পানি নিয়ে তাতে পরিমাণমতো মধু, লেবুর রস, বিটলবণ আর পুদিনা পাতা ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই পানীয় পান করলে গরমেও আপনার শরীর দীর্ঘ সময় ঠান্ডা থাকবে।

ডাবের পানির পরিবর্তে প্রাধান্য দিতে পারেন কমলার রসকেও। তৈরি করতে পারেন সৌদি আরব ও তুরস্কের অতি জনপ্রিয় পানীয় লাবান। এটি তৈরি করতে পারেন লবণ ও চিনি দিয়েই। ২ কাপ টক দইয়ে পরিমাণমতো লবণ আর ১ চা-চামচ চিনি দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে এটিকেও রাখতে পারেন সেহরিতে।

সারা দিন শরীরে পানির ভারসাম্য বজায় রাখতে এবং শরীর থেকে দূষিত পদার্থ বের করে দিতে সেহরিতে রাখতে পারেন রঙিন ফলমূলের সালাদ। ওটস প্রোটিন ও ফাইবারে ভরপুর। এটি খেলে অনেকক্ষণ পেট ভর্তি থাকে। এ ছাড়া পনির আর সন্দেশকেও সেহরিতে রাখতে পারেন নিশ্চিন্তে।