ঢাকা ০৩:২২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  আন্তর্জাতিক নদী বলে সীমান্ত  রেখা মালিকানায় আধা- আধি

সিলেটের প্রাণের ধারা -প্রকৃতির মাধুর্য ভরা জাফলংয়ের পিয়াইন নদী ।

  • মোঃ আরিফ হোসেন
  • আপডেট সময় ০৩:০৯:৪৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ মার্চ ২০২২
  • ৪৫৬ বার পড়া হয়েছে

ফাইল ছবি

প্রকৃতির রংধনুর  মাধুর্যে ভরা সিলেট জাফলং এর পিয়াইন নদী। প্রাণবন্ত এই নদী বইছে সিলেটের উত্তর সীমান্ত ঘেসে। বহতা পিয়ানের স্বচ্ছ জলে নৌকা  ভাসিয়ে পর্যটকরা উপভোগ করে দারুন নৌবিহার। কর্মব্যস্ত  এ নদী জুরে দুচোখ মিলে  দেখার মতো আছে অনেক কিছু । বৈশিষ্ট্য আর বৈচিত্রে পিয়াইনকে মিলানো যায় না অন্য আর দশটা নদীর সাথে । অন্যদিকে তাই পর্যটকদের আনাগোনায়  জমে উঠেছে এ নদী।  পর্যটক কেন্দ্রে প্রিয় মুহূর্তগুলো স্মৃতিপটে বন্দি করার মত দারুন দৃশ্য। এবং বনভোজন প্রিয়জনদের জন্য নদীপাড়ে পিকনিক স্পটও আছে। কি ছোট কি বড় নদীর কাকচক্ষু জল উৎসাহিত আনে সবার মনে । নদীর ওপারে পাহাড়ের কোলে দাঁড়িয়ে আছে ভারতের ডাওকি শহর । খালি চোখে দেখা যায় ওপারের ঘরবাড়ি ও শহরের অবকাঠামো।  সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে আসা ৫৮ টি নদীর মধ্যে উল্লেখযোগ্য পিয়াইন।  আন্তর্জাতিক নদী বলে সীমান্ত  রেখা মালিকানায় আধা- আধি  । ওপারে ওরা ভারত জনগোষ্ঠী, এপারে আমরা বাংলাদেশী । পিয়াইন নদীর উৎপত্তি পার্বত্য আসামের উমগট নদী থেকে।  পাহাড়ি নদীতে জলের গভীরতা কম থাকে। পিয়াইনের বুকে তাই নৌকা আটকে যায়  কোথাও কোথাও । শুকনো মৌসুমে জলের অভাব থাকলেও ভরা মৌসুমে  ভরাট এ নদী জলের তোড়ে হয় দারুন  দূরত্ব । নদীর দেখাদেখি পিয়াইন পাড়ের  ছোট শিশুরাও খেলাধুলায় মগ্ন থাকে। পিয়াইন নদীর এখন তিনটি ধারা পুরনো পিয়াইন, পবিত্র ডালা,ও নয়া ডালা ।  তুলনামূলকভাবে বেশি পানি নিয়ে  আছে নয়া ডালা ।   এখন মূল ধারা নয়া কে  স্থানীয় বলে নয়া গাঙ। বর্ষার পাহাড়ি ঢলে  পুরনো পিয়াইন ও পবিত্র ডালার পানি থাকে মাত্র কয়েক ঘণ্টার জন্য। খরা মৌসুমে দুপাড়ে জেগে থাকে পলির সঞ্চয়। জাফলংয়ের পিয়াইন নদী পাড়ে মোট ৫টি  পঞ্জি আছে খাসিয়া ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর । ঐতিহ্যের পরম্পরায় খাসিয়ারা সাধারণত বসবাস করে পাহাড়ি নদীর ধারে। জাফলং থেকে  ছাতক পর্যন্ত পিয়াইনের মোট  ২২টি বাক। নদীর প্রতিটি বাঁকে জীবন ও জীবিকার প্রাণবন্ত আয়োজন।  দিনের আলো ফুরিয়ে গোধূলি ধারায় প্রকৃতি যেন মাধুরী ছড়াচ্ছে নদীর বুকে। রূপ লাবণ্য আর ঐতিহ্যে ভরা প্রাণের এই ধারা নদী সিলেট জাফলংয়ের প্রাণকেন্দ্র।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় রাসিক মেয়র ‘বঙ্গবন্ধু ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে স্বাধীনতার বীজ বোপন করেছিলেন’

  আন্তর্জাতিক নদী বলে সীমান্ত  রেখা মালিকানায় আধা- আধি

সিলেটের প্রাণের ধারা -প্রকৃতির মাধুর্য ভরা জাফলংয়ের পিয়াইন নদী ।

আপডেট সময় ০৩:০৯:৪৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১০ মার্চ ২০২২

প্রকৃতির রংধনুর  মাধুর্যে ভরা সিলেট জাফলং এর পিয়াইন নদী। প্রাণবন্ত এই নদী বইছে সিলেটের উত্তর সীমান্ত ঘেসে। বহতা পিয়ানের স্বচ্ছ জলে নৌকা  ভাসিয়ে পর্যটকরা উপভোগ করে দারুন নৌবিহার। কর্মব্যস্ত  এ নদী জুরে দুচোখ মিলে  দেখার মতো আছে অনেক কিছু । বৈশিষ্ট্য আর বৈচিত্রে পিয়াইনকে মিলানো যায় না অন্য আর দশটা নদীর সাথে । অন্যদিকে তাই পর্যটকদের আনাগোনায়  জমে উঠেছে এ নদী।  পর্যটক কেন্দ্রে প্রিয় মুহূর্তগুলো স্মৃতিপটে বন্দি করার মত দারুন দৃশ্য। এবং বনভোজন প্রিয়জনদের জন্য নদীপাড়ে পিকনিক স্পটও আছে। কি ছোট কি বড় নদীর কাকচক্ষু জল উৎসাহিত আনে সবার মনে । নদীর ওপারে পাহাড়ের কোলে দাঁড়িয়ে আছে ভারতের ডাওকি শহর । খালি চোখে দেখা যায় ওপারের ঘরবাড়ি ও শহরের অবকাঠামো।  সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে আসা ৫৮ টি নদীর মধ্যে উল্লেখযোগ্য পিয়াইন।  আন্তর্জাতিক নদী বলে সীমান্ত  রেখা মালিকানায় আধা- আধি  । ওপারে ওরা ভারত জনগোষ্ঠী, এপারে আমরা বাংলাদেশী । পিয়াইন নদীর উৎপত্তি পার্বত্য আসামের উমগট নদী থেকে।  পাহাড়ি নদীতে জলের গভীরতা কম থাকে। পিয়াইনের বুকে তাই নৌকা আটকে যায়  কোথাও কোথাও । শুকনো মৌসুমে জলের অভাব থাকলেও ভরা মৌসুমে  ভরাট এ নদী জলের তোড়ে হয় দারুন  দূরত্ব । নদীর দেখাদেখি পিয়াইন পাড়ের  ছোট শিশুরাও খেলাধুলায় মগ্ন থাকে। পিয়াইন নদীর এখন তিনটি ধারা পুরনো পিয়াইন, পবিত্র ডালা,ও নয়া ডালা ।  তুলনামূলকভাবে বেশি পানি নিয়ে  আছে নয়া ডালা ।   এখন মূল ধারা নয়া কে  স্থানীয় বলে নয়া গাঙ। বর্ষার পাহাড়ি ঢলে  পুরনো পিয়াইন ও পবিত্র ডালার পানি থাকে মাত্র কয়েক ঘণ্টার জন্য। খরা মৌসুমে দুপাড়ে জেগে থাকে পলির সঞ্চয়। জাফলংয়ের পিয়াইন নদী পাড়ে মোট ৫টি  পঞ্জি আছে খাসিয়া ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর । ঐতিহ্যের পরম্পরায় খাসিয়ারা সাধারণত বসবাস করে পাহাড়ি নদীর ধারে। জাফলং থেকে  ছাতক পর্যন্ত পিয়াইনের মোট  ২২টি বাক। নদীর প্রতিটি বাঁকে জীবন ও জীবিকার প্রাণবন্ত আয়োজন।  দিনের আলো ফুরিয়ে গোধূলি ধারায় প্রকৃতি যেন মাধুরী ছড়াচ্ছে নদীর বুকে। রূপ লাবণ্য আর ঐতিহ্যে ভরা প্রাণের এই ধারা নদী সিলেট জাফলংয়ের প্রাণকেন্দ্র।