ঢাকা ০৯:১৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে একটি কল্যাণকর রাষ্ট্র বানাতে চায় : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহ্রিয়ার আলম, এমপি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে একটি কল্যাণকর রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চায় বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহ্রিয়ার আলম, এমপি।
বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে প্রতিমন্ত্রী তাঁর নির্বাচনি এলাকা রাজশাহীর বাঘা উপজেলার তেপুকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা জানান।

শাহ্রিয়ার আলম বলেন, সরকারের কাজ তৃণমূলের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করা। যদি কোনো সরকার তা করতে না পারে, তবে তার সরকারে থাকার দরকার নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমন একটি স্ট্যান্ডার্ড তৈরি করেছেন, যার মাধ্যমে বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়েছে। তিনি বাংলাদেশকে যে উচ্চতায় নিয়ে গেছেন, তার প্রতিফলন এখন সবাই দেখতে পাচ্ছে।

বিভিন্ন সময়ে দেশের মানুষকে নিয়ে অনেক ছিনিমিনি খেলা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সামরিক সরকারের নামে দেশের সাধারণ জনগণের ভাগ্য নিয়ে এক সময় অনেক তামাশা হয়েছে, ছিনিমিনি খেলা হয়েছে আর নয়। বাংলাদেশের জনগণকে নিয়ে আর এ ধরনের কিছু করতে দেওয়া হবে না। দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর ৫৫ বছরের জীবনে প্রতিটি দিন মানুষের জন্য হেঁটেছেন, আন্দোলন-সংগ্রাম করে দেশ স্বাধীন করেছেন। তাঁর সুযোগ্য কন্যা এখন ১৭ কোটি মানুষের জন্য হাঁটছেন। তাঁর এই ছুটে চলা কেউ থামাতে পারবে না, কারণ তাঁর চলার পথ জনগণকে নিয়ে। পৃথিবীর কোনো শক্তিই তাঁকে থামাতে পারবে না।

অপপ্রচারকারীদের সতর্ক করে শাহ্রিয়ার আলম বলেন, যখন সময় আসবে জনগণ সকল অপপ্রচারের জবাব দেবে। এত উন্নয়ন যাদের চোখে পড়ে না, তাঁদের খুঁজে বের করতে হবে। ক্ষমতায় না গেলে অপপ্রচারকারীদের কিছু ভালো লাগে; কিন্তু আমাদের ভালো লাগা অন্য জায়গায় জনগণ ভালো থাকলে আমরা ভালো থাকি, জনগণের মুখ মলিন না থাকলে, আমরা ভালো থাকি।

দেশের অর্থনীতি এখন ভালো জায়গায় আছে মন্তব্য করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে অনেকবার খাদের কিনারা থেকে রক্ষা করেছেন। বঙ্গবন্ধুর রক্ত যখন ক্ষমতায় আছে, তখন দেশের সব জায়গায় সরকার আছে। যেখানে অসহায়, নিঃস্ব মানুষ আছে, সেখানে সরকার আছে। এ সময় তিনি তৃণমূলের নেতাদের মানুষের সুখে-দুঃখে পাশে থাকতে বলেন।

অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারের সভাপতিত্বে শাহ্দৌলা সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আমজাদ হোসেন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মীর মোঃ মামুনুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম বক্তৃতা দেন।

এর আগে বেলা বারোটায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বাঘা উপজেলার টাইরিপাড়া থেকে মিয়াপাড়া মসজিদ পর্যন্ত ২৫৭ মিটার রাস্তার নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেন। উদ্বোধন শেষে তিনি এ উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বলেন, পৃথিবীতে বর্তমানে নানাধরনের সমস্যা চলছে, যুদ্ধ চলছে এত কিছুর পরও আমাদের দেশে উন্নয়ন হচ্ছে, রাস্তা হচ্ছে। পৃথিবীতে বেশির ভাগ দেশ উল্টো দিকে যাচ্ছে এর মধ্যেও বাংলাদেশ পৃথিবীতে সবচেয়ে দ্রুত উন্নতি করার দেশ।

সকালে প্রতিমন্ত্রী তাঁর বাঘার আড়ানীস্থ নিজ বাসভবনে উপজেলার গরিব, অসহায় ও রোগগ্রস্তদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করেন। এ সময় তিনি ২১ জনকে মোট ৯ লাখ ৮০ হাজার টাকার চেক তুলে দেন। এর মধ্যে ১৬ জনকে ৫০ হাজার করে, ৩ জনকে ৪০ হাজার করে এবং অপর ২ জনকে ৩০ হাজার (টাকা) করে চেক বিতরণ করা হয়।

আপলোডকারীর তথ্য

Daily Naba Bani

মিডিয়া তালিকাভুক্ত জাতীয় দৈনিক নববাণী পত্রিকার জন্য সকল জেলা উপজেলায় সংবাদ কর্মী আবশ্যকঃ- আগ্রহীরা আজই আবেদন করুন। মেইল: 24nababani@gmail.com
জনপ্রিয় সংবাদ

দলীয় নেতাকর্মীসহ বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের সাথে রাসিক মেয়রের ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়

শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে একটি কল্যাণকর রাষ্ট্র বানাতে চায় : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

আপডেট সময় ০৫:৪০:১৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে একটি কল্যাণকর রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চায় বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহ্রিয়ার আলম, এমপি।
বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে প্রতিমন্ত্রী তাঁর নির্বাচনি এলাকা রাজশাহীর বাঘা উপজেলার তেপুকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা জানান।

শাহ্রিয়ার আলম বলেন, সরকারের কাজ তৃণমূলের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করা। যদি কোনো সরকার তা করতে না পারে, তবে তার সরকারে থাকার দরকার নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমন একটি স্ট্যান্ডার্ড তৈরি করেছেন, যার মাধ্যমে বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়েছে। তিনি বাংলাদেশকে যে উচ্চতায় নিয়ে গেছেন, তার প্রতিফলন এখন সবাই দেখতে পাচ্ছে।

বিভিন্ন সময়ে দেশের মানুষকে নিয়ে অনেক ছিনিমিনি খেলা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সামরিক সরকারের নামে দেশের সাধারণ জনগণের ভাগ্য নিয়ে এক সময় অনেক তামাশা হয়েছে, ছিনিমিনি খেলা হয়েছে আর নয়। বাংলাদেশের জনগণকে নিয়ে আর এ ধরনের কিছু করতে দেওয়া হবে না। দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর ৫৫ বছরের জীবনে প্রতিটি দিন মানুষের জন্য হেঁটেছেন, আন্দোলন-সংগ্রাম করে দেশ স্বাধীন করেছেন। তাঁর সুযোগ্য কন্যা এখন ১৭ কোটি মানুষের জন্য হাঁটছেন। তাঁর এই ছুটে চলা কেউ থামাতে পারবে না, কারণ তাঁর চলার পথ জনগণকে নিয়ে। পৃথিবীর কোনো শক্তিই তাঁকে থামাতে পারবে না।

অপপ্রচারকারীদের সতর্ক করে শাহ্রিয়ার আলম বলেন, যখন সময় আসবে জনগণ সকল অপপ্রচারের জবাব দেবে। এত উন্নয়ন যাদের চোখে পড়ে না, তাঁদের খুঁজে বের করতে হবে। ক্ষমতায় না গেলে অপপ্রচারকারীদের কিছু ভালো লাগে; কিন্তু আমাদের ভালো লাগা অন্য জায়গায় জনগণ ভালো থাকলে আমরা ভালো থাকি, জনগণের মুখ মলিন না থাকলে, আমরা ভালো থাকি।

দেশের অর্থনীতি এখন ভালো জায়গায় আছে মন্তব্য করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে অনেকবার খাদের কিনারা থেকে রক্ষা করেছেন। বঙ্গবন্ধুর রক্ত যখন ক্ষমতায় আছে, তখন দেশের সব জায়গায় সরকার আছে। যেখানে অসহায়, নিঃস্ব মানুষ আছে, সেখানে সরকার আছে। এ সময় তিনি তৃণমূলের নেতাদের মানুষের সুখে-দুঃখে পাশে থাকতে বলেন।

অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারের সভাপতিত্বে শাহ্দৌলা সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আমজাদ হোসেন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মীর মোঃ মামুনুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম বক্তৃতা দেন।

এর আগে বেলা বারোটায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বাঘা উপজেলার টাইরিপাড়া থেকে মিয়াপাড়া মসজিদ পর্যন্ত ২৫৭ মিটার রাস্তার নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেন। উদ্বোধন শেষে তিনি এ উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বলেন, পৃথিবীতে বর্তমানে নানাধরনের সমস্যা চলছে, যুদ্ধ চলছে এত কিছুর পরও আমাদের দেশে উন্নয়ন হচ্ছে, রাস্তা হচ্ছে। পৃথিবীতে বেশির ভাগ দেশ উল্টো দিকে যাচ্ছে এর মধ্যেও বাংলাদেশ পৃথিবীতে সবচেয়ে দ্রুত উন্নতি করার দেশ।

সকালে প্রতিমন্ত্রী তাঁর বাঘার আড়ানীস্থ নিজ বাসভবনে উপজেলার গরিব, অসহায় ও রোগগ্রস্তদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করেন। এ সময় তিনি ২১ জনকে মোট ৯ লাখ ৮০ হাজার টাকার চেক তুলে দেন। এর মধ্যে ১৬ জনকে ৫০ হাজার করে, ৩ জনকে ৪০ হাজার করে এবং অপর ২ জনকে ৩০ হাজার (টাকা) করে চেক বিতরণ করা হয়।