ঢাকা ১০:১৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শেখ হাসিনার লক্ষ্য বাংলাদেশ হবে গৃহহীন মুক্ত : বিভাগীয় কমিশনার

বিশ্ববসতি দিবস ২০২৩ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায়

বিভাগীয় কমিশনার ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর বলেছেন, পৃথিবীর ইতিহাসে এমন কোনো দেশ নেই যারা বলেছে কোনো গৃহহীন থাকবে না। এমনকি আমেরিকার মতো বড় অর্থনীতির দেশেও গৃহহীন আছে। কিন্তু আপনার-আমার দেশের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, দেশে কোনো গৃহহীন থাকবে না।
আজ সোমবার (২ অক্টোবর) সকালে বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে বিশ্ববসতি দিবস ২০২৩ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথিরবক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।
বিভাগীয় কমিশনার বলেন, মুজিববর্ষে গৃহহীনমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সরকার এ পর্যন্ত ২ লাখ ৩৮ হাজার ৮৫১টি ঘর তৈরি করে দিয়েছেন। এতেপ্রায় সাড়ে নয় লাখ মানুষ বসবাস করছে। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বীর নিবাস নামে ৩০ হাজার ঘরও নির্মাণ করা হয়েছে ।
পরিকল্পিত গৃহনির্মাণের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর বলেন, গৃহনির্মাণ একটি স্থায়ী কাজ, এটা পরিকল্পনামাফিক করতে হবে। রাস্তা, বাড়িঘর পরিকল্পনা অনুযায়ী না করলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য হুমকির কারণ হবে।
তিনি বলেন, টেকসই নগর নির্মাণে জাতিসংঘের যে পরিকল্পনা তা বাস্তবায়নে আমরা কতটা অর্জন করতে পেরেছি সেটা ফিরে দেখতে হবে। আমাদের সমস্যাগুলো খুঁজে বের করতে হবে। সবাই একসঙ্গে কাজ করে সঠিক নগর গড়তে হবে।
প্রধান অতিথি বলেন, প্রত্যেক নগরে দুইটি বড় সমস্যা থাকে অতিপানি এবং খাবার পানির অপ্রতুলতা। এই সমস্যা সমাধানে পরিকল্পনামাফিক সবাইকে কাজ করতে হবে। পরিবেশবান্ধব জীবন যাপনের ব্যবস্থা করতে হবে। তা না হলে প্রাচীনকালে যেমন অনেক নগরী ধ্বংস হয়ে গেছে, আমাদের অবস্থাও তেমন হওয়ারসম্ভবনা থাকবে।
অনুষ্ঠানে মুখ্য আলোচক ছিলেন গণপূর্ত জোন রাজশাহীর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. মিসবাহ উদ্দিন আহমেদ। বিশেষজ্ঞ আলোচক ছিলেন রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক প্রফেসর অনুতোষ দাস।
আলোচনা সভায় রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোঃ জিয়াউল হক এঁর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী রেঞ্জের পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) মোহাম্মদ শাহজাহান মিয়া, আরএমপি’র উপপুলিশ কমিশনার (এস্টেট এন্ড ডেভেলপমেন্ট) মো. আরেফিন জুয়েল।অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) মো. ইমতিয়াজ হোসেন, বাংলাদেশ বেতার রাজশাহীর উপআঞ্চলিক পরিচালক মুহাম্মদ মুনিরুল হাসান, রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর তানভীরুল আলম, সোনার দেশ পত্রিকার সম্পাদক আকবারুল হাসান মিল্লাত, রেডা’র সাধারণ সম্পাদক কাজী মিজানুর রহমান প্রমুখ।
এর আগে, ‘স্থিতিশীল নগর অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি ও পুনরুদ্ধারে টেকসই নগরসমূহই চালিকাশক্তি’- প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় থেকে বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে এসে শেষ হয়।
উল্লেখ্য, ১৯৮৬ সাল থেকে অক্টোবর মাসের প্রথম সোমবার বিশ্ববসতি দিবস উদ্যাপন করা হয়। সেই উপলক্ষ্যে সারাদেশের মতোআজ রাজশাহীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় বিশ্ব বসতি দিবস-২০২৩ উদযাপিত হয়।

 

আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

রাজশাহীতে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ শীর্ষক আলোচনা সভা

শেখ হাসিনার লক্ষ্য বাংলাদেশ হবে গৃহহীন মুক্ত : বিভাগীয় কমিশনার

আপডেট সময় ০৫:৪০:৫৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২ অক্টোবর ২০২৩

বিভাগীয় কমিশনার ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর বলেছেন, পৃথিবীর ইতিহাসে এমন কোনো দেশ নেই যারা বলেছে কোনো গৃহহীন থাকবে না। এমনকি আমেরিকার মতো বড় অর্থনীতির দেশেও গৃহহীন আছে। কিন্তু আপনার-আমার দেশের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, দেশে কোনো গৃহহীন থাকবে না।
আজ সোমবার (২ অক্টোবর) সকালে বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে বিশ্ববসতি দিবস ২০২৩ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথিরবক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।
বিভাগীয় কমিশনার বলেন, মুজিববর্ষে গৃহহীনমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সরকার এ পর্যন্ত ২ লাখ ৩৮ হাজার ৮৫১টি ঘর তৈরি করে দিয়েছেন। এতেপ্রায় সাড়ে নয় লাখ মানুষ বসবাস করছে। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বীর নিবাস নামে ৩০ হাজার ঘরও নির্মাণ করা হয়েছে ।
পরিকল্পিত গৃহনির্মাণের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর বলেন, গৃহনির্মাণ একটি স্থায়ী কাজ, এটা পরিকল্পনামাফিক করতে হবে। রাস্তা, বাড়িঘর পরিকল্পনা অনুযায়ী না করলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য হুমকির কারণ হবে।
তিনি বলেন, টেকসই নগর নির্মাণে জাতিসংঘের যে পরিকল্পনা তা বাস্তবায়নে আমরা কতটা অর্জন করতে পেরেছি সেটা ফিরে দেখতে হবে। আমাদের সমস্যাগুলো খুঁজে বের করতে হবে। সবাই একসঙ্গে কাজ করে সঠিক নগর গড়তে হবে।
প্রধান অতিথি বলেন, প্রত্যেক নগরে দুইটি বড় সমস্যা থাকে অতিপানি এবং খাবার পানির অপ্রতুলতা। এই সমস্যা সমাধানে পরিকল্পনামাফিক সবাইকে কাজ করতে হবে। পরিবেশবান্ধব জীবন যাপনের ব্যবস্থা করতে হবে। তা না হলে প্রাচীনকালে যেমন অনেক নগরী ধ্বংস হয়ে গেছে, আমাদের অবস্থাও তেমন হওয়ারসম্ভবনা থাকবে।
অনুষ্ঠানে মুখ্য আলোচক ছিলেন গণপূর্ত জোন রাজশাহীর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. মিসবাহ উদ্দিন আহমেদ। বিশেষজ্ঞ আলোচক ছিলেন রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক প্রফেসর অনুতোষ দাস।
আলোচনা সভায় রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোঃ জিয়াউল হক এঁর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী রেঞ্জের পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) মোহাম্মদ শাহজাহান মিয়া, আরএমপি’র উপপুলিশ কমিশনার (এস্টেট এন্ড ডেভেলপমেন্ট) মো. আরেফিন জুয়েল।অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) মো. ইমতিয়াজ হোসেন, বাংলাদেশ বেতার রাজশাহীর উপআঞ্চলিক পরিচালক মুহাম্মদ মুনিরুল হাসান, রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর তানভীরুল আলম, সোনার দেশ পত্রিকার সম্পাদক আকবারুল হাসান মিল্লাত, রেডা’র সাধারণ সম্পাদক কাজী মিজানুর রহমান প্রমুখ।
এর আগে, ‘স্থিতিশীল নগর অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি ও পুনরুদ্ধারে টেকসই নগরসমূহই চালিকাশক্তি’- প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় থেকে বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে এসে শেষ হয়।
উল্লেখ্য, ১৯৮৬ সাল থেকে অক্টোবর মাসের প্রথম সোমবার বিশ্ববসতি দিবস উদ্যাপন করা হয়। সেই উপলক্ষ্যে সারাদেশের মতোআজ রাজশাহীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় বিশ্ব বসতি দিবস-২০২৩ উদযাপিত হয়।