ঢাকা ০৭:০৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৯ এপ্রিল ২০২৪, ২৬ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাসিক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সরকারিকরণ হলো রাজশাহী সার্ভে ইনস্টিটিউট

রাজশাহী সরকারি সার্ভে ইনস্টিটিউট

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন মহোদয়ে ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সরকারিকরণ হলো ‘রাজশাহী সরকারি সার্ভে ইনস্টিটিউট’। ‘ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড সার্ভে ইনস্টিটিউট, রাজশাহী’কে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অধীন প্রতিষ্ঠান হিসেবে ‘রাজশাহী সরকারি সার্ভে ইনস্টিটিউট’ নামে নামকরণ ও সরকারিকরণ করে মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) প্রজ্ঞাপন জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের কারিগরি শাখা-১ এর উপ-সচিব মোহাম্মদ মিজানুর রহমান তালুকদার স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়, ‘ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড সার্ভে ইনস্টিটিউট, রাজশাহী’কে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অধীন প্রতিষ্ঠান হিসেবে ‘রাজশাহী সরকারি সার্ভে ইনস্টিটিউট’ নামে নামকরণ ও ১১.০১.২০২২ তারিখ হতে সরকারিকরণ করা হলো। যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে এ আদেশ জারি করা হলো।’

এদিকে রাজশাহী সার্ভে ইনস্টিটিউট সরকারিকরণ হওয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। একইসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীকে ধন্যবাদ জানান রাসিক মেয়র।

মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, সার্ভে ইনস্টিটিউট সরকারিকরণ হওয়ায় আমরা রাজশাহীবাসী অত্যন্ত আনন্দিত। এতে শিক্ষানগরী রাজশাহীতে নতুন মাত্রা যোগ হলো। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং শিক্ষামন্ত্রী সহ সংশিষ্টদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

উল্লেখ্য, শিক্ষানগরী রাজশাহী শহরের প্রাণকেন্দ্র সাহেববাজার সংলগ্ন সোনাদীঘির পশ্চিমে ১৮৯৮ সালে ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড সার্ভে ইন্সটিটিউট প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯০২ সালে এক বছর মেয়াদী আমিনশীপ ও দুই বছর মেয়াদী সাব-ওয়ারসিয়ার কোর্স চালু হয়ে ১৯৮৫ সাল পযর্ন্ত চালু ছিল। ১৯৮৫ সালে ডিপ্লোমা-ইন-সিভিল-ইঞ্জিনিয়ারিং ও ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং  (Surveying Technology)   চালু হয়। ২০০০-২০০১ শিক্ষাবর্ষ হতে শুধু চার বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং(সার্ভেয়িং) কোর্স বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে পরিচালিত হয়ে আসছিল। নগরীর কচুয়াতৈল এলাকায় প্রায় তিন একর জমির ওপর সার্ভে ইন্সটিটিউটের নতুন ভবনসমূহ ও ক্যাম্পাস নির্মাণ করা হয়। ২০১৮ সালের ১০ মে সার্ভে ইন্সটিটিউটের নতুন এই ক্যাম্পাসের উদ্বোধন করেছিলেন এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে – ডেপুটি স্পীকার

রাসিক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সরকারিকরণ হলো রাজশাহী সার্ভে ইনস্টিটিউট

আপডেট সময় ০৫:২৮:১৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২৪
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন মহোদয়ে ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সরকারিকরণ হলো ‘রাজশাহী সরকারি সার্ভে ইনস্টিটিউট’। ‘ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড সার্ভে ইনস্টিটিউট, রাজশাহী’কে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অধীন প্রতিষ্ঠান হিসেবে ‘রাজশাহী সরকারি সার্ভে ইনস্টিটিউট’ নামে নামকরণ ও সরকারিকরণ করে মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) প্রজ্ঞাপন জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের কারিগরি শাখা-১ এর উপ-সচিব মোহাম্মদ মিজানুর রহমান তালুকদার স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়, ‘ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড সার্ভে ইনস্টিটিউট, রাজশাহী’কে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অধীন প্রতিষ্ঠান হিসেবে ‘রাজশাহী সরকারি সার্ভে ইনস্টিটিউট’ নামে নামকরণ ও ১১.০১.২০২২ তারিখ হতে সরকারিকরণ করা হলো। যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে এ আদেশ জারি করা হলো।’

এদিকে রাজশাহী সার্ভে ইনস্টিটিউট সরকারিকরণ হওয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। একইসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীকে ধন্যবাদ জানান রাসিক মেয়র।

মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, সার্ভে ইনস্টিটিউট সরকারিকরণ হওয়ায় আমরা রাজশাহীবাসী অত্যন্ত আনন্দিত। এতে শিক্ষানগরী রাজশাহীতে নতুন মাত্রা যোগ হলো। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং শিক্ষামন্ত্রী সহ সংশিষ্টদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

উল্লেখ্য, শিক্ষানগরী রাজশাহী শহরের প্রাণকেন্দ্র সাহেববাজার সংলগ্ন সোনাদীঘির পশ্চিমে ১৮৯৮ সালে ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড সার্ভে ইন্সটিটিউট প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯০২ সালে এক বছর মেয়াদী আমিনশীপ ও দুই বছর মেয়াদী সাব-ওয়ারসিয়ার কোর্স চালু হয়ে ১৯৮৫ সাল পযর্ন্ত চালু ছিল। ১৯৮৫ সালে ডিপ্লোমা-ইন-সিভিল-ইঞ্জিনিয়ারিং ও ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং  (Surveying Technology)   চালু হয়। ২০০০-২০০১ শিক্ষাবর্ষ হতে শুধু চার বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং(সার্ভেয়িং) কোর্স বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে পরিচালিত হয়ে আসছিল। নগরীর কচুয়াতৈল এলাকায় প্রায় তিন একর জমির ওপর সার্ভে ইন্সটিটিউটের নতুন ভবনসমূহ ও ক্যাম্পাস নির্মাণ করা হয়। ২০১৮ সালের ১০ মে সার্ভে ইন্সটিটিউটের নতুন এই ক্যাম্পাসের উদ্বোধন করেছিলেন এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।