ঢাকা ০১:২০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০২৪, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাবি ছাত্রলীগ কমিটির বিরুদ্ধে আন্দোলনে বিতর্কিতরাই

রাবি ছাত্রলীগ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ছাত্রলীগের কমিটিতে পদ না পেয়ে বিতর্কিত আখ্যা দিয়ে আন্দোলনে নেমেছেন খোদ বিতর্কিত নেতারাই।
২২ অক্টোবর রবিবার থেকে নতুন কমিটিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে তা বিলুপ্তির দাবিতে আন্দোলন করছেন তারা। এদিন দিনভর বিক্ষোভ, আবাসিক হলে ভাঙচুর, দলীয় নেতাকে মারধর ও ককটেল বিষ্ফোরণসহ নারকিয় কর্মকান্তের মত ঘটনা ঘটিয়েছে এবং অব্যহত রেখেছে তারা।
সাধারণ ছাত্ররা বলছেন,
আন্দোলনকারী নেতারাই অছাত্র, বিবাহিত, শিবির সংশ্লিষ্টতা, মাদক, হত্যা মামলাসহ অতীতে বিভিন্ন অপকর্মের জন্য বিস্তর বিতর্কিত। তারা তাদের
কাক্ষিত পদ না পাওয়ার ক্ষোভেই নতুন কমিটিকে বিতর্কিত করা চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
আন্দোলনকারীরা হলেন সাবেক সহ-সভাপতি কাজী আমিনুল হক লিংকন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাহিনুল ইসলাম সরকার ডন, ধর্মবিষয়ক উপসম্পাদক তাওহীদুল ইসলাম দুর্জয়, ছাত্রলীগ নেতা অনিক মাহমুদ বণি ও সাকিবুল হাসান বাকি প্রমুখ। নতুন কমিটিতে কাজী লিংকন, বাকি ও বণি পদ না পেলেও সরকার ডন ও দুর্জয় সহসভাপতির পদ পেয়েছেন। তাদের অভিযোগ, নতুন সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বাবু দীর্ঘ সময় রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন না এবং সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লা হিল গালিব ড্রপ আউট ও অছাত্র।
তবে আন্দোলনকারী এই পদবঞ্চিত নেতাদের সঙ্গে অতীতে রাবি ছাত্রলীগের কমিটির দাবিতে সক্রিয় ছিলেন নতুন সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লাহ হিল গালিব। কিন্তু কমিটি ঘোষণার আগ পর্যন্ত তাকে নিয়ে প্রশ্ন না তুললেও এখন কমিটির ঘোষণার পর তার ছাত্রত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন এই নেতারা। এমনকি মাদারবখশ হলে গালিবের কক্ষে পদবঞ্চিতরা ভাঙচুর চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
এই বিষয়ে আসাদুল্লাহ হিল গালিব বলেন, যারা আমার কক্ষ ভাঙচুর করে ও আমাকে নানা বানোয়াট অভিযোগে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে তাদের সাথেই একসময় আমি রাবি ছাত্রলীগের সম্মেলনের জন্য আন্দোলন করেছি। তখন তারা এসব বানোয়াট অভিযোগ তোলেনি, এখন কোন স্বার্থে আমাকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছে তা আমার বোধগম্য নয়। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক।
এদিকে অভিযোগকারী এই ছাত্রনেতারাই নানা কাণ্ডে খোদ বিতর্কিত। তাদের মধ্যে সাবেক সহসভাপতি কাজী লিংকন কুষ্টিয়ার আলমগীর হোসেন খোকনের মেয়ে ও কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান অনিকের খালাতো বোন রিফা তিন্নীকে ২০১৭ সালের ২৭ জুন বিয়ে করেন বলেও গণমাধ্যমে উঠে আসে। তাদের ৫ বছর বয়সী সন্তান থাকারও অভিযোগ রয়েছে।
মার্কেটিং বিভাগের ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষের এই শিক্ষার্থীর ছাত্রত্ব কয়েক বছর আগেই শেষ হলেও ছাত্রলীগের শীর্ষ পদ পেতে সান্ধ্যকোর্সে ভর্তি হয়েছিলেন। তবে এসব অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে এসেছেন কাজী লিংকন।
আন্দোলনকারীদের মধ্যে অন্যতম সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং ফাইন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০১১-১২ সেশনের সাবেক শিক্ষার্থী শাহীনুল ইসলাম সরকার ডন। ছাত্রলীগের পদ পেতে তিনি ইংলিশ অ্যান্ড আদার ল্যাংগুয়েজ ইনস্টিটিউটে শর্ট কোর্সে ভর্তি হয়েছিলেন। তার বিরুদ্ধে ক্যাম্পাসে ঠিকাদারিতে অসাদু প্রভাব বিস্তার ও ভর্তি জালিয়াতিতে সংশ্লিষ্টতাসহ স্থানীয় বহিরাগতদের নিয়ে চলাফেরার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তিনি রাবি ছাত্রলীগের কমিটির দাবিতে দীর্ঘদিন বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লা হিল গালিব, কাজী লিংকন, তৌহিদ দুর্জয় ও মেজবাহুল ইসলামসহ নেতাকর্মীদের নিয়ে আন্দোলন করেন।
জানতে চাইলে সরকার ডন বলেন, ওইসময়তো আমরা জানতাম না যে সে (গালিব) বিবাহিত। পরে এটা জানতে পেরেছি। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বিবাহিতরা সংগঠনে থাকতে পারেনা। এছাড়া ভুয়া সার্টিফিকেট দেখিয়ে, সে সান্ধ্যকালীন কোর্সে ভর্তি হয়েছে। তিনি দাবি করেন, পদ পাওয়ার উদ্দেশ্যে তিনি আন্দোলন করছেন না।
তবে,কমিটি অবাঞ্ছিত ঘোষণা করার বিষয়ে বলেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ ভুল করেছে এখানে। এতোদিন যাচাই-বাছাই করে কি করলো? সেজন্যই আমরা অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছি। তাদের (কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ) ওপরে আমাদের বিশ্বাস-আস্থা ছিল। তারা স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মানে যেরকম নেতৃত্ব চেয়েছিল, সে অনুযায়ী হয়নি। তাদের উপরে থাকা আস্থাটা এখন হারিয়ে গেছে।
এছাড়া আন্দোনকারীদের মধ্যে অন্যতম রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সহসভাপতি অনিক মাহমুদ বনি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১ম বর্ষ থেকে ড্রপ আউট ও রাবি ছাত্রলীগে ২ বার বহিষ্কৃত হয়েছেন। মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজী ও ছিনতাইয়ে জড়িত থাকায় পুলিশ তাকে গ্রেফতারও করে। ছাত্রলীগ নেতা সোহেল হত্যা মামলায়ও আসামি তিনি। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য সাকিবুল হাসান বাকির বিরুদ্ধে বিবাহ, মাদকাসক্তি, চাঁদাবাজী ও ইভটিজিংয়ের অভিযোগ রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগে গত ৬ বছর একেবারে নিস্ক্রিয় ছিলেন। এছাড়া আবাসিক হলে গুলি ছোঁড়ার খবরেও শিরোনাম হয়েছেন তিনি।
রাবি ছাত্রলীগের সাবেক উপ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক তৌহিদ দুর্জয় ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী। মাদ্রাসা থেকে দাখিল ও আলিম পাশ করা দুর্জয়ের বিরুদ্ধে শিবিরের সঙ্গে গভীর লিয়াজোঁ করার অভিযোগ আছে। সম্প্রতি প্রকাশিত একটি গণমাধ্যমের খবরে উঠে আসে, বিশ্ববিদ্যালয় শিবিরের সাবেক দুই সেক্রেটারির সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে।
জানতে চাইলে রাবি ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বাবু বলেন, আমাকে দায়িত্ব দিয়ে একটা কমিটি করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এখানে আমাদের অভিভাবক খায়েরুজ্জামান লিটন ভাই।  সেখানে আমাদের অবাঞ্ছিত করার তারা কে? নির্বাচনকে সামনে রেখে জননেত্রী শেখ হাসিনার বিশ্বস্ত ইউনিট রাবি ছাত্রলীগকে ব্যবহার করে মতিহার ক্যাম্পাসকে অস্থিতিশীল করা চেষ্টা করলে আমরা শক্ত হাতে প্রতিহত করব।
প্রসঙ্গত, গত শনিবার রাতে মোস্তাফিজুর রহমান বাবু ও আসাদুল্লা হিল গালিবকে সাধারণ সম্পাদক করে ৩৯ সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। পরদিন রবিবার নতুন কমিটিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে দিনভর বিক্ষোভ করে পদবঞ্চিতরা। তারা মাদার বখশ হলে আসাদিল্লা হিল গালিবের কক্ষে ভাঙচুর চালায়।
এছাড়া পূর্বের কমিটির সহসম্পাদক আরব হোসেনকে মারধর ও ধাওয়া দেন কাজী লিংকন। এসময় সাকিবুল হাসান বাকিসহ অন্য পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরাও উপস্থিত ছিলেন। পরে রাতে অন্তত ৪টি হলে কয়েকটি ককটেল বিষ্ফোরণ করা হয়। এগুলো কারা বিষ্ফোরণ করে তা এখনও জানা যায়নি।
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

রাজশাহীতে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ শীর্ষক আলোচনা সভা

রাবি ছাত্রলীগ কমিটির বিরুদ্ধে আন্দোলনে বিতর্কিতরাই

আপডেট সময় ০৪:০০:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৩ অক্টোবর ২০২৩
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ছাত্রলীগের কমিটিতে পদ না পেয়ে বিতর্কিত আখ্যা দিয়ে আন্দোলনে নেমেছেন খোদ বিতর্কিত নেতারাই।
২২ অক্টোবর রবিবার থেকে নতুন কমিটিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে তা বিলুপ্তির দাবিতে আন্দোলন করছেন তারা। এদিন দিনভর বিক্ষোভ, আবাসিক হলে ভাঙচুর, দলীয় নেতাকে মারধর ও ককটেল বিষ্ফোরণসহ নারকিয় কর্মকান্তের মত ঘটনা ঘটিয়েছে এবং অব্যহত রেখেছে তারা।
সাধারণ ছাত্ররা বলছেন,
আন্দোলনকারী নেতারাই অছাত্র, বিবাহিত, শিবির সংশ্লিষ্টতা, মাদক, হত্যা মামলাসহ অতীতে বিভিন্ন অপকর্মের জন্য বিস্তর বিতর্কিত। তারা তাদের
কাক্ষিত পদ না পাওয়ার ক্ষোভেই নতুন কমিটিকে বিতর্কিত করা চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
আন্দোলনকারীরা হলেন সাবেক সহ-সভাপতি কাজী আমিনুল হক লিংকন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাহিনুল ইসলাম সরকার ডন, ধর্মবিষয়ক উপসম্পাদক তাওহীদুল ইসলাম দুর্জয়, ছাত্রলীগ নেতা অনিক মাহমুদ বণি ও সাকিবুল হাসান বাকি প্রমুখ। নতুন কমিটিতে কাজী লিংকন, বাকি ও বণি পদ না পেলেও সরকার ডন ও দুর্জয় সহসভাপতির পদ পেয়েছেন। তাদের অভিযোগ, নতুন সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বাবু দীর্ঘ সময় রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন না এবং সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লা হিল গালিব ড্রপ আউট ও অছাত্র।
তবে আন্দোলনকারী এই পদবঞ্চিত নেতাদের সঙ্গে অতীতে রাবি ছাত্রলীগের কমিটির দাবিতে সক্রিয় ছিলেন নতুন সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লাহ হিল গালিব। কিন্তু কমিটি ঘোষণার আগ পর্যন্ত তাকে নিয়ে প্রশ্ন না তুললেও এখন কমিটির ঘোষণার পর তার ছাত্রত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন এই নেতারা। এমনকি মাদারবখশ হলে গালিবের কক্ষে পদবঞ্চিতরা ভাঙচুর চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
এই বিষয়ে আসাদুল্লাহ হিল গালিব বলেন, যারা আমার কক্ষ ভাঙচুর করে ও আমাকে নানা বানোয়াট অভিযোগে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে তাদের সাথেই একসময় আমি রাবি ছাত্রলীগের সম্মেলনের জন্য আন্দোলন করেছি। তখন তারা এসব বানোয়াট অভিযোগ তোলেনি, এখন কোন স্বার্থে আমাকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছে তা আমার বোধগম্য নয়। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক।
এদিকে অভিযোগকারী এই ছাত্রনেতারাই নানা কাণ্ডে খোদ বিতর্কিত। তাদের মধ্যে সাবেক সহসভাপতি কাজী লিংকন কুষ্টিয়ার আলমগীর হোসেন খোকনের মেয়ে ও কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান অনিকের খালাতো বোন রিফা তিন্নীকে ২০১৭ সালের ২৭ জুন বিয়ে করেন বলেও গণমাধ্যমে উঠে আসে। তাদের ৫ বছর বয়সী সন্তান থাকারও অভিযোগ রয়েছে।
মার্কেটিং বিভাগের ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষের এই শিক্ষার্থীর ছাত্রত্ব কয়েক বছর আগেই শেষ হলেও ছাত্রলীগের শীর্ষ পদ পেতে সান্ধ্যকোর্সে ভর্তি হয়েছিলেন। তবে এসব অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে এসেছেন কাজী লিংকন।
আন্দোলনকারীদের মধ্যে অন্যতম সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং ফাইন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০১১-১২ সেশনের সাবেক শিক্ষার্থী শাহীনুল ইসলাম সরকার ডন। ছাত্রলীগের পদ পেতে তিনি ইংলিশ অ্যান্ড আদার ল্যাংগুয়েজ ইনস্টিটিউটে শর্ট কোর্সে ভর্তি হয়েছিলেন। তার বিরুদ্ধে ক্যাম্পাসে ঠিকাদারিতে অসাদু প্রভাব বিস্তার ও ভর্তি জালিয়াতিতে সংশ্লিষ্টতাসহ স্থানীয় বহিরাগতদের নিয়ে চলাফেরার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তিনি রাবি ছাত্রলীগের কমিটির দাবিতে দীর্ঘদিন বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লা হিল গালিব, কাজী লিংকন, তৌহিদ দুর্জয় ও মেজবাহুল ইসলামসহ নেতাকর্মীদের নিয়ে আন্দোলন করেন।
জানতে চাইলে সরকার ডন বলেন, ওইসময়তো আমরা জানতাম না যে সে (গালিব) বিবাহিত। পরে এটা জানতে পেরেছি। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বিবাহিতরা সংগঠনে থাকতে পারেনা। এছাড়া ভুয়া সার্টিফিকেট দেখিয়ে, সে সান্ধ্যকালীন কোর্সে ভর্তি হয়েছে। তিনি দাবি করেন, পদ পাওয়ার উদ্দেশ্যে তিনি আন্দোলন করছেন না।
তবে,কমিটি অবাঞ্ছিত ঘোষণা করার বিষয়ে বলেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ ভুল করেছে এখানে। এতোদিন যাচাই-বাছাই করে কি করলো? সেজন্যই আমরা অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছি। তাদের (কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ) ওপরে আমাদের বিশ্বাস-আস্থা ছিল। তারা স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মানে যেরকম নেতৃত্ব চেয়েছিল, সে অনুযায়ী হয়নি। তাদের উপরে থাকা আস্থাটা এখন হারিয়ে গেছে।
এছাড়া আন্দোনকারীদের মধ্যে অন্যতম রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সহসভাপতি অনিক মাহমুদ বনি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১ম বর্ষ থেকে ড্রপ আউট ও রাবি ছাত্রলীগে ২ বার বহিষ্কৃত হয়েছেন। মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজী ও ছিনতাইয়ে জড়িত থাকায় পুলিশ তাকে গ্রেফতারও করে। ছাত্রলীগ নেতা সোহেল হত্যা মামলায়ও আসামি তিনি। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য সাকিবুল হাসান বাকির বিরুদ্ধে বিবাহ, মাদকাসক্তি, চাঁদাবাজী ও ইভটিজিংয়ের অভিযোগ রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগে গত ৬ বছর একেবারে নিস্ক্রিয় ছিলেন। এছাড়া আবাসিক হলে গুলি ছোঁড়ার খবরেও শিরোনাম হয়েছেন তিনি।
রাবি ছাত্রলীগের সাবেক উপ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক তৌহিদ দুর্জয় ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী। মাদ্রাসা থেকে দাখিল ও আলিম পাশ করা দুর্জয়ের বিরুদ্ধে শিবিরের সঙ্গে গভীর লিয়াজোঁ করার অভিযোগ আছে। সম্প্রতি প্রকাশিত একটি গণমাধ্যমের খবরে উঠে আসে, বিশ্ববিদ্যালয় শিবিরের সাবেক দুই সেক্রেটারির সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে।
জানতে চাইলে রাবি ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বাবু বলেন, আমাকে দায়িত্ব দিয়ে একটা কমিটি করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এখানে আমাদের অভিভাবক খায়েরুজ্জামান লিটন ভাই।  সেখানে আমাদের অবাঞ্ছিত করার তারা কে? নির্বাচনকে সামনে রেখে জননেত্রী শেখ হাসিনার বিশ্বস্ত ইউনিট রাবি ছাত্রলীগকে ব্যবহার করে মতিহার ক্যাম্পাসকে অস্থিতিশীল করা চেষ্টা করলে আমরা শক্ত হাতে প্রতিহত করব।
প্রসঙ্গত, গত শনিবার রাতে মোস্তাফিজুর রহমান বাবু ও আসাদুল্লা হিল গালিবকে সাধারণ সম্পাদক করে ৩৯ সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। পরদিন রবিবার নতুন কমিটিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে দিনভর বিক্ষোভ করে পদবঞ্চিতরা। তারা মাদার বখশ হলে আসাদিল্লা হিল গালিবের কক্ষে ভাঙচুর চালায়।
এছাড়া পূর্বের কমিটির সহসম্পাদক আরব হোসেনকে মারধর ও ধাওয়া দেন কাজী লিংকন। এসময় সাকিবুল হাসান বাকিসহ অন্য পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরাও উপস্থিত ছিলেন। পরে রাতে অন্তত ৪টি হলে কয়েকটি ককটেল বিষ্ফোরণ করা হয়। এগুলো কারা বিষ্ফোরণ করে তা এখনও জানা যায়নি।