ঢাকা ০৫:৫৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৫ মে ২০২৪, ৩১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজশাহীর মোহনপুরে ৩৬ দিনের শিশুকে হত্যা

ফাইল ছবি।

রাজশাহীর মোহনপুরে গরুর নাইন্দ থেকে ৩৬ দিনের কন্যা শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।
শনিবার (২৭ মে) বিকাল আনুমানিক ৫.৩০ মিনিটে উপজেলার ৪নং মৌগাছী ইউনিয়ন এলাকার বকপাড়া (মধ্যপাড়া) গ্রামে এমন ঘটনা ঘটেছে।
খোঁজ নিয়ে জানাযায়, ঐ শিশুটির নাম আয়শা আক্তার, পিতা – আলামিন হোসেন। পরে আলামিনের সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমার বাড়িতে স্ত্রী ও শিশুটি ছাড়া আর কেউ ছিলনা। এই ঘটনার পরে আমাকে জানালে আমি তৎক্ষনাৎ বাড়ি চলে আসি এবং এসে দেখি আমার কন্যা সন্তান মারা গেছে। পরে বাচ্চার মা তানিয়ার সাথে কথা জানাযায় ঘটনার বিবরণ, বিকাল আনুমানিক ৫.৩০ থেকে পৌনে ছয়টার দিকে নিজ শয়নকক্ষে শিশুটিকে ঘুমিয়ে রেখে বাথরুমে যায়। বাথরুম থেকে পাশের বাড়িতে কুকুরের কামড়ের কথা শুনে সেখানে যায়। এরপর পাশের বাড়ির রোজিনা’র বাকচিৎকারে দ্রুত বাড়িতে ছুটে আসেন এবং দেখে তার কন্যা সন্তানটি মারা গেছে। তবে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সুমনের স্ত্রী রোজিনা বলছে, আমাদের পাশের বাড়িতে বিয়ে হচ্ছে। আমি বিয়ে বাড়িতে যাওয়ার জন্য তানিয়াকে ডাকতে এসে দেখি গরুর পানি খাওয়ার নাইন্দের মধ্যে বাচ্চাটি ভাঁসছে। আমি সাথে জোরে জোরে চিৎকার দিলে সবাই ছুটে আসে এবং বাচ্চাটিকে সেখা থেকে উদ্ধার করে।
পরে মোহনপুর থানা পুলিশের (উপস্থিত) সাথে কথা বললে তারা জানান, আমরা খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে এসেছি। আমরা বাচ্চাটিকে উদ্ধার করেছি এবং আশেপাশের সবাইকে জিজ্ঞেসাবাদ করছি। মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন এখনও মামলা হয়নি তবে এটি একটি হত্যা মামলা হবে।
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

রাজশাহীতে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ শীর্ষক আলোচনা সভা

রাজশাহীর মোহনপুরে ৩৬ দিনের শিশুকে হত্যা

আপডেট সময় ০৯:১৪:৩৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ মে ২০২৩
রাজশাহীর মোহনপুরে গরুর নাইন্দ থেকে ৩৬ দিনের কন্যা শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।
শনিবার (২৭ মে) বিকাল আনুমানিক ৫.৩০ মিনিটে উপজেলার ৪নং মৌগাছী ইউনিয়ন এলাকার বকপাড়া (মধ্যপাড়া) গ্রামে এমন ঘটনা ঘটেছে।
খোঁজ নিয়ে জানাযায়, ঐ শিশুটির নাম আয়শা আক্তার, পিতা – আলামিন হোসেন। পরে আলামিনের সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমার বাড়িতে স্ত্রী ও শিশুটি ছাড়া আর কেউ ছিলনা। এই ঘটনার পরে আমাকে জানালে আমি তৎক্ষনাৎ বাড়ি চলে আসি এবং এসে দেখি আমার কন্যা সন্তান মারা গেছে। পরে বাচ্চার মা তানিয়ার সাথে কথা জানাযায় ঘটনার বিবরণ, বিকাল আনুমানিক ৫.৩০ থেকে পৌনে ছয়টার দিকে নিজ শয়নকক্ষে শিশুটিকে ঘুমিয়ে রেখে বাথরুমে যায়। বাথরুম থেকে পাশের বাড়িতে কুকুরের কামড়ের কথা শুনে সেখানে যায়। এরপর পাশের বাড়ির রোজিনা’র বাকচিৎকারে দ্রুত বাড়িতে ছুটে আসেন এবং দেখে তার কন্যা সন্তানটি মারা গেছে। তবে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সুমনের স্ত্রী রোজিনা বলছে, আমাদের পাশের বাড়িতে বিয়ে হচ্ছে। আমি বিয়ে বাড়িতে যাওয়ার জন্য তানিয়াকে ডাকতে এসে দেখি গরুর পানি খাওয়ার নাইন্দের মধ্যে বাচ্চাটি ভাঁসছে। আমি সাথে জোরে জোরে চিৎকার দিলে সবাই ছুটে আসে এবং বাচ্চাটিকে সেখা থেকে উদ্ধার করে।
পরে মোহনপুর থানা পুলিশের (উপস্থিত) সাথে কথা বললে তারা জানান, আমরা খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে এসেছি। আমরা বাচ্চাটিকে উদ্ধার করেছি এবং আশেপাশের সবাইকে জিজ্ঞেসাবাদ করছি। মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন এখনও মামলা হয়নি তবে এটি একটি হত্যা মামলা হবে।