ঢাকা ০১:২৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পালংখালী চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের প্রতিবাদ জানিয়েছেন

উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম.গফুর উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে উখিয়ার এক সাংবাদিক কর্তৃক জঘন্য অপবাদ দিয়ে মিথ্যাচার করায় পালংখালী বাসির মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

এতে সংক্ষুদ্ধ অনেকেই নিজেদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে গণপ্রতিবাদ জানিয়েছেন সংবাদ মাধ্যমে।

পালংখালী ইউনিয়নের বিভিন্ন পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের মধ্যে ১নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা নুরুল আবছার সাজু,সেলিম আজাদ,জিয়াউল হক,তারেক,আবদূর রহিম,মো.রিয়াদ আবু,জসিম উদ্দিন,রহিম উল্লাহ,২ নং ওয়ার্ডের জালাল উদ্দিন,আজিজ উল্লাহ,জামাল উদ্দিন,৩ নং ওয়ার্ডের৷

মোজাফফর আহমদ সওদাগর মেম্বার, সোলতান আহমদ,বাহাদুর,৪নং ওয়ার্ডের সোলতান আহমদ,দুদু মিয়া,বোরহান উদ্দিন,৫নং ওয়ার্ডের ফরিদ আলম,মোহাম্মদ আলী,মোহাম্মদ ইব্রাহীম, ৬নং ওয়ার্ডের তোফাইল আহমদ মেম্বার,মো.শাহজাহান,ছালেহ আহমদ,৭নং ওয়ার্ডের ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ সেলিম, নুরুল হক মেম্বার,কামরুল ইসলাম, এতমিনানুল হক,একরাম,এনামুল হক,৮নং ওয়ার্ডের আব্দুল মাবুদ মেম্বার,রহমত উল্লাহ,কামাল হোসেন মেম্বার,৯নং ওয়ার্ডের যুবনেতা আনোয়ার কামাল,ক্রীড়াবিদ রুস্তম আলী ও মো.হানিফ প্রমুখ।

সহ শত-শত জনতা চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে তীব্র গণপ্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন।তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,গত কয়েকদিন ধরে গফুর মিয়া চৌধুরী নামের এক সাংবাদিক তাহার ফেসবুক আইডি ইংরেজীতে “গফুর মিয়া চৌধুরী” থেকে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জঘন্য মিথ্যাচারে মেতে উঠেছেন।সংক্ষুদ্ধ জনতা জানান,গত ২৯ মে সম্পন্ন হওয়া উখিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সাংবাদিক গফুর মিয়া চৌধুরী ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন।নির্বাচন কালীন সময়ে তিনি চেয়ারম্যান এম.গফুর উদ্দিন চৌধুরীর নিকট ভোট চান,ভোটের মাঠে সহযোগিতা চান এবং নির্বাচনী খরচ মেঠাতে ১ লাখ টাকা চাঁদা চেয়েছেন বলে জানান।গফুর মিয়া চৌধুরীর অনৈতিক প্রস্তাব প্রত্যাখান এবং নির্বাচনে হেরে যাওয়ার ক্ষোভে- উম্মাদনায় গফুর মিয়া চৌধুরী, চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে জঘন্য মিথ্যাচার করে ফেসবুকে পোস্ট দেন।

তাতে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে উপস্থাপিত তথ্য সম্পুর্ন মিথ্যা অপবাদ বলে দাবী করেন গণপ্রতিবাদকারিরা।তারা বলেন,গফুর উদ্দিন চৌধুরী একজন সহজ-সরল মানুষ। একজন গরীব দরদী মানুষ। দিন মজুর, খেটে খাওয়া মানুষের অকৃত্রিম বন্ধু।তার তুলনা কারো সাথে মিলেনা।তাকে বার-বার ষড়যন্ত্রের ফাঁদে ফেলা হয়েছে।জনগণের সেবা করতে গিয়ে প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছেন। আমাদের জন্য জেল খেটেছেন।গফুর উদ্দিন চৌধুরীর উপর মানুষের দোয়া আছে,আল্লাহর রহমত আছে।সকল ষড়যন্ত্রের শৃংখল ভেঙে জনগণের কাতারে ফিরে আসেন।এই মুহুর্তে সাংবাদিক গফুর মিয়া চৌধুরীর নতুন ষড়যন্ত্রে পালংখালী বাসি সংক্ষুদ্ধ হয়েছেন।

পালংখালী বাসির মনে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।সাংবাদিক গফুর মিয়া চৌধুরীকে চেয়ারম্যানের নিকট নি:শর্ত ক্ষমা চেয়ে তাহার ফেসবুক আইডি থেকে ক্ষমা প্রার্থী পোস্ট দেওয়ার আহবান জানানো হয়।অন্যথায় এর ব্যতিক্রম হলে পালংখালী ইউনিয়ন বাসির পক্ষ থেকে আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ এবং কঠোর কর্মসুচী দিতে বাধ্য হবেন বলে জানান।

এ বিষয়ে ইউপি’র চেয়ারম্যান এম.গফুর উদ্দিন ক্ষুদ্ধ কন্ঠে জানান,সাংবাদিক গফুর মিয়া চৌধুরী উপজেলা নির্বাচন কালীন সময়ে ভোট চান,নির্বাচনী সহযোগিতা এবং ১ লাখ টাকা চাঁদা চেয়েছিলেন,আমি দিতে পারি নাই।নির্বাচনে হেরে গিয়ে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও মিথ্যাচার করে যাচ্ছেন।আমি প্রতিকার চেয়ে আগে উখিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক বরাবর লিখিত আবেদন করেছি।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

Daily Naba Bani

মিডিয়া তালিকাভুক্ত জাতীয় দৈনিক নববাণী পত্রিকার জন্য সকল জেলা উপজেলায় সংবাদ কর্মী আবশ্যকঃ- আগ্রহীরা আজই আবেদন করুন। মেইল: 24nababani@gmail.com
জনপ্রিয় সংবাদ

সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, ভোগান্তিতে ৮ লক্ষাধিক মানুষ

পালংখালী চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের প্রতিবাদ জানিয়েছেন

আপডেট সময় ০৮:৪৭:৪১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ জুন ২০২৪

উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম.গফুর উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে উখিয়ার এক সাংবাদিক কর্তৃক জঘন্য অপবাদ দিয়ে মিথ্যাচার করায় পালংখালী বাসির মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

এতে সংক্ষুদ্ধ অনেকেই নিজেদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে গণপ্রতিবাদ জানিয়েছেন সংবাদ মাধ্যমে।

পালংখালী ইউনিয়নের বিভিন্ন পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের মধ্যে ১নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা নুরুল আবছার সাজু,সেলিম আজাদ,জিয়াউল হক,তারেক,আবদূর রহিম,মো.রিয়াদ আবু,জসিম উদ্দিন,রহিম উল্লাহ,২ নং ওয়ার্ডের জালাল উদ্দিন,আজিজ উল্লাহ,জামাল উদ্দিন,৩ নং ওয়ার্ডের৷

মোজাফফর আহমদ সওদাগর মেম্বার, সোলতান আহমদ,বাহাদুর,৪নং ওয়ার্ডের সোলতান আহমদ,দুদু মিয়া,বোরহান উদ্দিন,৫নং ওয়ার্ডের ফরিদ আলম,মোহাম্মদ আলী,মোহাম্মদ ইব্রাহীম, ৬নং ওয়ার্ডের তোফাইল আহমদ মেম্বার,মো.শাহজাহান,ছালেহ আহমদ,৭নং ওয়ার্ডের ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ সেলিম, নুরুল হক মেম্বার,কামরুল ইসলাম, এতমিনানুল হক,একরাম,এনামুল হক,৮নং ওয়ার্ডের আব্দুল মাবুদ মেম্বার,রহমত উল্লাহ,কামাল হোসেন মেম্বার,৯নং ওয়ার্ডের যুবনেতা আনোয়ার কামাল,ক্রীড়াবিদ রুস্তম আলী ও মো.হানিফ প্রমুখ।

সহ শত-শত জনতা চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে তীব্র গণপ্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন।তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,গত কয়েকদিন ধরে গফুর মিয়া চৌধুরী নামের এক সাংবাদিক তাহার ফেসবুক আইডি ইংরেজীতে “গফুর মিয়া চৌধুরী” থেকে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জঘন্য মিথ্যাচারে মেতে উঠেছেন।সংক্ষুদ্ধ জনতা জানান,গত ২৯ মে সম্পন্ন হওয়া উখিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সাংবাদিক গফুর মিয়া চৌধুরী ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন।নির্বাচন কালীন সময়ে তিনি চেয়ারম্যান এম.গফুর উদ্দিন চৌধুরীর নিকট ভোট চান,ভোটের মাঠে সহযোগিতা চান এবং নির্বাচনী খরচ মেঠাতে ১ লাখ টাকা চাঁদা চেয়েছেন বলে জানান।গফুর মিয়া চৌধুরীর অনৈতিক প্রস্তাব প্রত্যাখান এবং নির্বাচনে হেরে যাওয়ার ক্ষোভে- উম্মাদনায় গফুর মিয়া চৌধুরী, চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে জঘন্য মিথ্যাচার করে ফেসবুকে পোস্ট দেন।

তাতে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে উপস্থাপিত তথ্য সম্পুর্ন মিথ্যা অপবাদ বলে দাবী করেন গণপ্রতিবাদকারিরা।তারা বলেন,গফুর উদ্দিন চৌধুরী একজন সহজ-সরল মানুষ। একজন গরীব দরদী মানুষ। দিন মজুর, খেটে খাওয়া মানুষের অকৃত্রিম বন্ধু।তার তুলনা কারো সাথে মিলেনা।তাকে বার-বার ষড়যন্ত্রের ফাঁদে ফেলা হয়েছে।জনগণের সেবা করতে গিয়ে প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছেন। আমাদের জন্য জেল খেটেছেন।গফুর উদ্দিন চৌধুরীর উপর মানুষের দোয়া আছে,আল্লাহর রহমত আছে।সকল ষড়যন্ত্রের শৃংখল ভেঙে জনগণের কাতারে ফিরে আসেন।এই মুহুর্তে সাংবাদিক গফুর মিয়া চৌধুরীর নতুন ষড়যন্ত্রে পালংখালী বাসি সংক্ষুদ্ধ হয়েছেন।

পালংখালী বাসির মনে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে।সাংবাদিক গফুর মিয়া চৌধুরীকে চেয়ারম্যানের নিকট নি:শর্ত ক্ষমা চেয়ে তাহার ফেসবুক আইডি থেকে ক্ষমা প্রার্থী পোস্ট দেওয়ার আহবান জানানো হয়।অন্যথায় এর ব্যতিক্রম হলে পালংখালী ইউনিয়ন বাসির পক্ষ থেকে আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ এবং কঠোর কর্মসুচী দিতে বাধ্য হবেন বলে জানান।

এ বিষয়ে ইউপি’র চেয়ারম্যান এম.গফুর উদ্দিন ক্ষুদ্ধ কন্ঠে জানান,সাংবাদিক গফুর মিয়া চৌধুরী উপজেলা নির্বাচন কালীন সময়ে ভোট চান,নির্বাচনী সহযোগিতা এবং ১ লাখ টাকা চাঁদা চেয়েছিলেন,আমি দিতে পারি নাই।নির্বাচনে হেরে গিয়ে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও মিথ্যাচার করে যাচ্ছেন।আমি প্রতিকার চেয়ে আগে উখিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক বরাবর লিখিত আবেদন করেছি।