ঢাকা ১২:৫৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ এপ্রিল ২০২৪, ২৭ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
অবস্থান ধর্মঘট করেছে এলজিইডি ঠিকাদার সমিতি

নির্মানসামগ্রী রড এর দাম বাড়ায় এলজিইডি ঠিকাদার সমিতির ধর্মঘট।

ফাইল ছবি

নির্মাণসামগ্রী রড এর দাম বাড়ার প্রতিবাদে অবস্থান ধর্মঘট করেছে এলজিইডি ঠিকাদার সমিতি। এ সময় সব ধরনের নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখার হুঁশিয়ারি দেন সমিতির নেতারা।
রোববার (১৩ মার্চ) চট্টগ্রামে এলজিইডি ভবনের সামনে নির্মাণসামগ্রীর দামের লাগাম টানতে এবং চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের ব্যয় সমন্বয়ে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তারা।
এলজিইডি ঠিকাদার সমিতির সভাপতি সাইফুল ইসলাম বক্তব্যে বলেন, নির্মাণসামগ্রীর দাম বাড়ায় বর্তমানে প্রকল্পের কাজ চলার হার ২৫ ভাগে নেমে এসেছে। দিন দিন এভাবে দাম বাড়তে থাকলে কাজ চালানো সম্ভব নয়। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী নির্মাণসামগ্রীর মূল্য ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি পেলে সেটি প্রকল্প ব্যয়ের সঙ্গে সমন্বয় করা হয়। সেটি না হলে প্রকল্পের কাজ বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হবে।
সমাবেশে সমিতির সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান টিটু বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ইট, বালি, সিমেন্ট ও রডের দাম বেড়েছে। একই সময় প্রায় ৩৫ শতাংশ বেড়েছে হার্ডওয়্যার, সেনেটারি, ইলেকট্রিকসহ বিভিন্ন নির্মাণসামগ্রী দাম। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির ফলে বেড়েছে শ্রমিকের দৈনিক মজুরিও। আগে একজনের মজুরি ছিল ৫০০ টাকা। বর্তমানে ৮০০ টাকা। এ ছাড়া টন প্রতি ৫০ হাজার টাকার রড এখন ৮১ হাজার টাকা। আমদানি করা পাথরের টন ছিল ৩৪ হাজার টাকা। এখন ৫১ হাজার টাকা। এভাবে সব পণ্যের দাম বেড়েছে। কিন্তু এলজিইডির রেট রিসিডিউল করা হয়নি।
অবস্থান ধর্মঘটে উপস্থিত ছিলেন, ঠিকাদার মহিউদ্দিন সুফল, আলী হোসেন, মহসিন হায়দার নজরুল ইসলাম, সালাউদ্দিন লিটন, সাইফুল ইসলাম, শওকত হোসেন, মো. ইলিয়াছ  আলী

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে – ডেপুটি স্পীকার

অবস্থান ধর্মঘট করেছে এলজিইডি ঠিকাদার সমিতি

নির্মানসামগ্রী রড এর দাম বাড়ায় এলজিইডি ঠিকাদার সমিতির ধর্মঘট।

আপডেট সময় ০৩:২৭:০৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৬ মার্চ ২০২২

নির্মাণসামগ্রী রড এর দাম বাড়ার প্রতিবাদে অবস্থান ধর্মঘট করেছে এলজিইডি ঠিকাদার সমিতি। এ সময় সব ধরনের নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখার হুঁশিয়ারি দেন সমিতির নেতারা।
রোববার (১৩ মার্চ) চট্টগ্রামে এলজিইডি ভবনের সামনে নির্মাণসামগ্রীর দামের লাগাম টানতে এবং চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের ব্যয় সমন্বয়ে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তারা।
এলজিইডি ঠিকাদার সমিতির সভাপতি সাইফুল ইসলাম বক্তব্যে বলেন, নির্মাণসামগ্রীর দাম বাড়ায় বর্তমানে প্রকল্পের কাজ চলার হার ২৫ ভাগে নেমে এসেছে। দিন দিন এভাবে দাম বাড়তে থাকলে কাজ চালানো সম্ভব নয়। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী নির্মাণসামগ্রীর মূল্য ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি পেলে সেটি প্রকল্প ব্যয়ের সঙ্গে সমন্বয় করা হয়। সেটি না হলে প্রকল্পের কাজ বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হবে।
সমাবেশে সমিতির সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান টিটু বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ইট, বালি, সিমেন্ট ও রডের দাম বেড়েছে। একই সময় প্রায় ৩৫ শতাংশ বেড়েছে হার্ডওয়্যার, সেনেটারি, ইলেকট্রিকসহ বিভিন্ন নির্মাণসামগ্রী দাম। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির ফলে বেড়েছে শ্রমিকের দৈনিক মজুরিও। আগে একজনের মজুরি ছিল ৫০০ টাকা। বর্তমানে ৮০০ টাকা। এ ছাড়া টন প্রতি ৫০ হাজার টাকার রড এখন ৮১ হাজার টাকা। আমদানি করা পাথরের টন ছিল ৩৪ হাজার টাকা। এখন ৫১ হাজার টাকা। এভাবে সব পণ্যের দাম বেড়েছে। কিন্তু এলজিইডির রেট রিসিডিউল করা হয়নি।
অবস্থান ধর্মঘটে উপস্থিত ছিলেন, ঠিকাদার মহিউদ্দিন সুফল, আলী হোসেন, মহসিন হায়দার নজরুল ইসলাম, সালাউদ্দিন লিটন, সাইফুল ইসলাম, শওকত হোসেন, মো. ইলিয়াছ  আলী