ঢাকা ০৮:৩৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গোপনে বিয়ের ৬ দিনের মাথায় তরুণীর আত্মহত্যা

রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলায় রাজিয়া সুলতানা বৃষ্টি (১৯) নামের এক তরুণীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বুধবার (২৪ মে) উপজেলার মৌগাছি ইউনিয়নের বেড়াবাড়ি পূর্বপাড়া গ্রাম থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। বৃষ্টি ওই গ্রামের রেজাউল করিমের মেয়ে।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (১৯ মে) প্রতিবেশী এক সন্তানের জনক সাহেদ হোসেনকে গোপনে বিয়ে করেন বৃষ্টি। এদিকে বুধবার (২৪ মে) পরিবারের পক্ষ থেকে বৃষ্টির অন্যত্র বিয়ের দিন ধার্য করা হয়। এর আগে মঙ্গলবার (২৩ মে) চাচাতো ভাই মুক্তাকিনের কাছে বৃষ্টি নিজের বিয়ের বিষয়টি জানায়। এর পরদিন ঘরে তার মরদেহ দেখতে পান স্বজনরা।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা রেজাউল করিম বাদী হয়ে আত্মহত্যার প্ররোচণায় সাহেদ হোসেনের বিরুদ্ধে মোহনপুর থানার একটি মামলা করেছেন।

রেজাউল করিম বলেন, “সকাল থেকে বৃষ্টিকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। তারপর বাড়িতে এসে দেখি আমার ছোট ভাইয়ের ঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে বৃষ্টি আত্মহত্যা করেছে। এর আগে বৃষ্টি সাহেদ হোসেনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছে। তার প্ররোচণায় আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেছে। আমি এর বিচার চাই।”

মোহনপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) দেবাশীষ নন্দী বলেন, “মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে নিহতের বাবা থানায় একটি মামলা করেছেন। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে।”

আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে – ডেপুটি স্পীকার

গোপনে বিয়ের ৬ দিনের মাথায় তরুণীর আত্মহত্যা

আপডেট সময় ০১:১৩:৪৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ মে ২০২৩

রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলায় রাজিয়া সুলতানা বৃষ্টি (১৯) নামের এক তরুণীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বুধবার (২৪ মে) উপজেলার মৌগাছি ইউনিয়নের বেড়াবাড়ি পূর্বপাড়া গ্রাম থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। বৃষ্টি ওই গ্রামের রেজাউল করিমের মেয়ে।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (১৯ মে) প্রতিবেশী এক সন্তানের জনক সাহেদ হোসেনকে গোপনে বিয়ে করেন বৃষ্টি। এদিকে বুধবার (২৪ মে) পরিবারের পক্ষ থেকে বৃষ্টির অন্যত্র বিয়ের দিন ধার্য করা হয়। এর আগে মঙ্গলবার (২৩ মে) চাচাতো ভাই মুক্তাকিনের কাছে বৃষ্টি নিজের বিয়ের বিষয়টি জানায়। এর পরদিন ঘরে তার মরদেহ দেখতে পান স্বজনরা।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা রেজাউল করিম বাদী হয়ে আত্মহত্যার প্ররোচণায় সাহেদ হোসেনের বিরুদ্ধে মোহনপুর থানার একটি মামলা করেছেন।

রেজাউল করিম বলেন, “সকাল থেকে বৃষ্টিকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। তারপর বাড়িতে এসে দেখি আমার ছোট ভাইয়ের ঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে বৃষ্টি আত্মহত্যা করেছে। এর আগে বৃষ্টি সাহেদ হোসেনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছে। তার প্ররোচণায় আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেছে। আমি এর বিচার চাই।”

মোহনপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) দেবাশীষ নন্দী বলেন, “মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে নিহতের বাবা থানায় একটি মামলা করেছেন। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে।”