ঢাকা ০১:৪৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিশ্ব সন্মোহনীদের নামের তালিকায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সর্বাগ্রে। তিনি সগৌরবে সন্মোহনীদের আসনে সমাসীন।

গোদাগাড়ীতে পালিত হলো জাতীর শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী।

ফাইল ছবি।

রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ীতে পালিত হলো জাতীর শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস।
বিশ্ব সন্মোহনীদের নামের তালিকায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সর্বাগ্রে। তিনি সগৌরবে সন্মোহনীদের আসনে সমাসীন। তবে হ্যাঁ সন্মোহনীতা হচ্ছে অত্যাকর্ষণজানিত মোহনীশক্তি যা যুগে যুগে কোন না কোন ব্যক্তিত্বে প্রকাশ পায়।আর এসব ব্যক্তিত্বের আঙ্গুলের ইশারায় মহাবিপ্লব সংঘটিত হয়। ফলে গোটা মানবজাতির মুক্তি আসে।এটি বস্তুত ব্যক্তিত্ব ও নেতৃত্বের সর্বোচ্চ গুণাবলীর সমন্বিত রূপ।

নানা আয়োজন আর দিনব্যাপী কর্মসূচিতে গোদাগাড়ীতে পালিত হচ্ছে স্বাধীনতার মহান স্থপতি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস।

১৫ ইং আগস্ট ২০২২ ইং সোমবার জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গোদাগাড়ী উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সকাল থেকে উপজেলা পরিষদ চত্বরে বঙ্গবন্ধুর অস্থায়ী বেদীতে ফুল দিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন রাজশাহী ১ গোদাগাড়ী তানোর আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ ওমর ফারুক চৌধুরী এমপি ।

শোক দিবসে উপস্থিত ছিলেন

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জানে আলম।
 উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ অয়েজ উদ্দিন বিশ্বাস।
সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুর রশিদ।
উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম।

 এছাড়াও পুলিশ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, সরকারী ও বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন সামাজিক ও সংস্কৃতিক সংগঠন এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকেও পুষ্পস্তবক অর্পন করা হয়।

সভায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধু একটি স্বাধীন লাল সবুজ বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন বলেই আজ আমরা স্বাধীন ও মুক্ত বিহঙ্গ। তাই বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া স্বাধীনতাকে আমাদের মর্যাদা ও সম্মানের সঙ্গে বুকে ধারন করে জাতির পিতার আদর্শে নিজেদের এবং আগামী প্রজন্মদের গড়ে তুলতে হবে। তবেই বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্য এবং লাখ লাখ মানুষের বুকের তাজা রক্তের মূল্যায়ন করা হবে।

বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকবেন সারা পৃথিবীর নির্যাতিত, নিপীড়িত ও মুক্তিকামী মানুষের আদর্শ ও অনুপ্রেরনা হয়ে। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে।
বঙ্গবন্ধু শুধু বাংলাদেশের নন, বঙ্গবন্ধু সারা বিশ্বের।
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে – ডেপুটি স্পীকার

বিশ্ব সন্মোহনীদের নামের তালিকায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সর্বাগ্রে। তিনি সগৌরবে সন্মোহনীদের আসনে সমাসীন।

গোদাগাড়ীতে পালিত হলো জাতীর শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী।

আপডেট সময় ০২:৫৬:০৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২
রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ীতে পালিত হলো জাতীর শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস।
বিশ্ব সন্মোহনীদের নামের তালিকায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সর্বাগ্রে। তিনি সগৌরবে সন্মোহনীদের আসনে সমাসীন। তবে হ্যাঁ সন্মোহনীতা হচ্ছে অত্যাকর্ষণজানিত মোহনীশক্তি যা যুগে যুগে কোন না কোন ব্যক্তিত্বে প্রকাশ পায়।আর এসব ব্যক্তিত্বের আঙ্গুলের ইশারায় মহাবিপ্লব সংঘটিত হয়। ফলে গোটা মানবজাতির মুক্তি আসে।এটি বস্তুত ব্যক্তিত্ব ও নেতৃত্বের সর্বোচ্চ গুণাবলীর সমন্বিত রূপ।

নানা আয়োজন আর দিনব্যাপী কর্মসূচিতে গোদাগাড়ীতে পালিত হচ্ছে স্বাধীনতার মহান স্থপতি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস।

১৫ ইং আগস্ট ২০২২ ইং সোমবার জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গোদাগাড়ী উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সকাল থেকে উপজেলা পরিষদ চত্বরে বঙ্গবন্ধুর অস্থায়ী বেদীতে ফুল দিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন রাজশাহী ১ গোদাগাড়ী তানোর আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ ওমর ফারুক চৌধুরী এমপি ।

শোক দিবসে উপস্থিত ছিলেন

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জানে আলম।
 উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ অয়েজ উদ্দিন বিশ্বাস।
সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুর রশিদ।
উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম।

 এছাড়াও পুলিশ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, সরকারী ও বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন সামাজিক ও সংস্কৃতিক সংগঠন এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকেও পুষ্পস্তবক অর্পন করা হয়।

সভায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধু একটি স্বাধীন লাল সবুজ বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন বলেই আজ আমরা স্বাধীন ও মুক্ত বিহঙ্গ। তাই বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া স্বাধীনতাকে আমাদের মর্যাদা ও সম্মানের সঙ্গে বুকে ধারন করে জাতির পিতার আদর্শে নিজেদের এবং আগামী প্রজন্মদের গড়ে তুলতে হবে। তবেই বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্য এবং লাখ লাখ মানুষের বুকের তাজা রক্তের মূল্যায়ন করা হবে।

বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকবেন সারা পৃথিবীর নির্যাতিত, নিপীড়িত ও মুক্তিকামী মানুষের আদর্শ ও অনুপ্রেরনা হয়ে। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে।
বঙ্গবন্ধু শুধু বাংলাদেশের নন, বঙ্গবন্ধু সারা বিশ্বের।